এখনই সময় আপনার স্বপ্ন পূরণ করার।

Share on facebook
Share on google
Share on twitter
Share on linkedin

অনলাইন থেকে এখন অনেকেই টাকা আয় করতে চাই। কারণ একটা গুজব রয়েছে অনলাইন থেকে নাকি হাজার হাজার ডলার আয় করা যায়। আসলে গুজব টা গুজব হলেও সত্য! আপনি যদি সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন এবং সঠিকভাবে ধৈর্য ধরে এগিয়ে যেতে পারেন তাহলে আপনি হাজার হাজার ডলার খুব সহজেই আয় করতে পারবেন। সেজন্য আপনার চাই একটি সঠিক দিক নির্দেশনা।

বারবারি আমি একটি কথাই বলছি সঠিক দিক নির্দেশনা এবং সঠিক সিদ্ধান্ত এটা মূল কারণ হচ্ছে, আপনারা আপনাদের আশেপাশে এমন অনেকেই আছে যাদের কে দেখবেন ইন্টারনেট থেকে আয় করার জন্য বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট এ ক্লিক করা বা ক্যাপচা পূরণ করার মাধ্যমে আয় করার চেষ্টা করে। আসলে এখান থেকে আয় করা যায় ঠিকই কিন্তু এই টাকা ইনকাম করা টাকে আসল ফ্রিল্যান্সিং বলে না।

এভাবে বিভিন্ন PTC, Adfly ইত্যাদি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে হয়তো আল্প কিছু টাকা আয় করতে পারবেন। কিন্তু এটার মাধ্যমে আপনি আপনার ফিউচার বা ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে পারবেন না। দুইদিন পরে আপনি নিজেই বলবেন আরে ফ্রিল্যান্সিং হচ্ছে ভুয়া জিনিস এখানে আবার হাজার ডুলার আয় করা যায় না কি?  আর এটাকে ফ্রিল্যান্সিং বলে না। ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে জানতে আমার এই পোষ্টটি পড়ুনঃ ফ্রিল্যান্সিং এবং আউটসোর্সিং কি?

বর্তমানে ইন্টারনেটের সহজলভ্যতার কারণে ফ্রিল্যান্সিং অনেক সহজ হয়ে গিয়েছে। যেটা এখান থেকে ৪-৫ বছর আগে অনেক কঠিন ছিল। কিন্তু এখন প্রযুক্তির নিত্যনতুন ব্যবহার এবং আপডেটের জন্য ফ্রিল্যান্সিংকে ক্যারিয়ার হিসেবে গ্রহণ করা অনেক সহজ হয়ে গিয়েছে। সুতরাং যে কেও চাইলেই শুরু করে দিতে পারে।

একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে আপনাকে অবশ্যই যে কোন একটি বিষয়ে দক্ষ হতে হবে। তার পরেও ধরে নিলাম আপনি সুধু মাত্র বেসিক কম্পিউটার চালাতে পারেন এবং একাডেমিক ভাবে আপনার ইংরেজি দক্ষতা খুবই ভালো। অর্থাৎ নতুন করে আপনার আর কিছু না শিখলেও চলবে। আপনি শুধুমাত্র আপনার ইংরেজি দক্ষতা কে কাজে লাগিয়ে শুরু করে দিতে পারেন আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার।

তো আপনি আপনার ইংরেজি দক্ষতা কে কাজে লাগিয়ে একজন কনটেন্ট ক্রিয়েটর বা আর্টিকেল রাইটার হিসেবে অনলাইনে কাজ শুরু করে দিতে পারেন। এবং একজন আর্টিকেল রাইটারের ভ্যালু অন্যান্য ফ্রিল্যান্সিং পেশার থেকে কোন অংশে কম নয়। আপনি রাইটার হিসাবে চাইলে প্রতি ঘন্টায় ২০-৭০ উএস ডলার আয় করতে পারবেন।

সুতরাং আপনার ইনকাম কোন অংশে একজন ব্যাংকারের থেকে কম হবে না। কারণ আমাদের দেশে ধরা হয় যে একজন ব্যাংকারের বেতন সবচেয়ে বেশি সেজন্য আমি এখানে একজন ব্যাংকারের বেতন এর সাথে তুলনা করলাম।

এখন দরকার সঠিক গাইডলাইনঃ

এখন দরকার সঠিক একটা সিদ্ধান্ত এবং সঠিক একটা গাইডলাইন। প্রথমে আমি আপনাকে বলব নিজেকে প্রশ্ন করুন আপনি কি চান? আপনি কোনটা করতে ভালোবাসেন? আপনি কোন কাজটা বেশি পছন্দ করেন? এই কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর যদি আপনি নিজের মধ্যে খুঁজে পান তাহলে আপনি এখনই সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য প্রস্তুত হয়ে যান।

এখন ধরে নিলাম ক্রিয়েটিভ জিনিষ আপনার খুবই পছন্দ এবং সেই পছন্দ বা ভাললাগা থেকেই আপনি গ্রাফিক্স ডিজাইন নিয়ে আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার গড়তে চাচ্ছেন।

তো আপনি সবচেয়ে মূল্যবান যে কাজটি একটি সঠিক সিদ্ধান্ত নেওয়া সেটি আপনার নেয়া শেষ। এবারের ধাপে, আপনাকে যেটা করতে হবে, গুগল অথবা ইউটিউব থেকে গ্রাফিক্স ডিজাইন রিলেটেড বিভিন্ন ভিডিও এবং ব্লগ পড়তে হবে এবং জানতে হবে একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার হিসেবে অনলাইনে কাজ করতে হলে আপনাকে ঠিক কোন কোন বিষয় শিখতে হবে। আর এভাবেই আপনার শেখাটা কে শুরু করে দিতে হবে।

আপনি যদি সঠিকভাবে ইউটিউব এবং গুগোল এ কিভাবে সার্চ করতে হয় এটি জানেন, তাহলে আপনার জন্য সঠিক তথ্য খুঁজে বের করা খুবই সহজ হবে। এবং খুব সহজেই আপনি ফ্রিতে প্রচুর পরিমাণে রিসোর্স সংগ্রহ করতে পারবেন। যেগুলা আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করার জন্য খুবই সহজ করে দিবে।

আপনার মনের ভিতরে এখন কিছু কমন প্রশ্ন আসতে পারে ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে। আর সেই প্রশ্নগুলার উত্তর এখানে পাবেনঃ ফ্রিল্যান্সিংএ নতুন! কিছুই জানেন না?

ফ্রিল্যান্সিং পেশাটা ঠিক কাদের জন্য বলতে পারেন? এটা শুধুমাত্র সেই সমস্ত মানুষদের জন্যে, যারা স্বপ্ন দেখতে ভালোবাসে, যারা ৯ টা থেকে ৫ টা অফিসে কাজ করে আবদ্ধ হতে চায় না, যারা স্বাধীনভাবে নিজের মত করে কাজ করতে চায়, সমগ্র দুনিয়াকে দেখতে চায়। ফ্রিল্যান্সিংটা ঠিক তাদের জন্যই। যতো দিন যাচ্ছে মানুষ ততো বেশি এই কাজের প্রতি ঝুকে যাচ্ছে। আর এর চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

ধরেন আজ আপনার একজন বন্ধু আপনার কাছে এসে বলছে, দোস্ত চল আজকে আমরা কক্সবাজার থেকে ঘুরে আসি এখন যদি আপনি নয়টা-পাঁচটা অফিস আওয়ারের চাকরি করে থাকেন তাহলে তাৎক্ষণিকভাবে আপনার জন্য ডিসিশন নেয়াটা খুবই কঠিন হয়ে যাবে। কিন্তু আপনি যদি ফ্রিল্যান্সার হন তাহলে শুধু কক্সবাজার না আপনি চাইলে পুরো পৃথিবী ভ্রমণ করতে পারেন। আপনার সাথে শুধু দরকার ইন্টারনেট কানেকশন এবং আপনার ব্যবহৃত ল্যাপটপ।

আর সাথে ল্যাপটপ আর আপনার মডেম থাকা মানে আপনি যেখানে খুশি সেখানে বসে কাজ করতে পারবেন। আপনি কক্সবাজারে ঘুরতে গেছেন সেখানে বিচে বসে খুব রিলাক্সে আপনার ক্লায়েন্টের সাথে কমিউনিকেশন করতে পারবেন। আপনার গুরুত্ব পূর্ণ কাজ গুলা সেখানেই করতে পারবেন। আমি এখানে একটি উদাহরণ দিয়ে আপনাদেরকে বুঝিয়েছি। এমন হাজারটা উধারন আছে সেগুলা বললে শেষ হবে না।

আমি আমি অনেককেই দেখেছি যারা নিজের নয়টা-পাঁচটা চাকরিটা ছেড়ে ফ্রিল্যান্সার হিসেবে তাদের ক্যারিয়ার শুরু করেছেন। এবং খুব সাফল্যের সাথে এগিয়ে যাচ্ছেন এর মানে এই নয় যে, আপনাকেও চাকরি ছাড়তে হবে আমি আপনাকে রিকমেন্ড করবো না যে, আপনি আপনার চাকরি ছেড়ে দিন। এতা কোন বুদ্ধিমানের কাজ হবে না। আমি বলব আপনি চাকরি করুন বা পড়াশোনা করুন যেটাই করুন তার পাশাপাশি চাইলে আপনি ফ্রীল্যান্সিং টাকে স্টার্ট করতে পারেন। এর পরে আপনি যখন একটা ভালো পজিশন এ উঠে যাবেন, এবং মনে হবে যে আপনার এখন চাকরি না করলেও চলবে, তখন চাইলে আপনি ৯-৫ টা চাকরি টাকে বাদ দিরে পারেন।

অনলাইনে এত রিসোর্স থাকার পরেও আমি অনেক মানুষকে দেখছি হতাশ হয়ে যেতে। নিজেকে শেষ পর্যন্ত ধরে রাখতে পারে নাই। এবং সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে নাই। আর তখনই নিজের কাছে খুবই অবাক লাগে যে, এত রিসোর্স থাকার পরেও কেন তারা একটি সঠিক সিদ্ধান্ত নিতে পারছে না। এই চিন্তা থেকেই আমার ব্লগটা তৈরি করা। যাতে নতুন যারা আসবে তাড়া যেন এখান থেকে একটি সঠিক গাইডলাইন খুজে পায়। আর আমি চেষ্টা করব এখানে এক সাথে সব জায়গার রিসোর্স নিয়ে আসতে। যাতে করে যে কেউ ফ্রিল্যান্সিংএ ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে আমার ব্লগ এ এসে তার সব প্রশ্নের উত্তর পেয়ে যান।

শেষ কথা

এই পোস্টটা মূলত নতুনদের জন্য। যদিও অনেক বেশি বড় হয়ে গিয়েছে তার পরেও আমি মনে করি আপনাদের উপকারে আসবে। আর যদি সামান্যতম উপকারে লেগে থাকে তাহলে কমেন্ট বক্সে আপনার গুরুত্বপূর্ণ মন্তব্য করতে ভুলবেন না। এই পোষ্ট সম্পর্কিত আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে আপনি অবশ্যই আপনার প্রশ্ন টি করে ফেলুন দ্রুত। আমি চেষ্টা করবো সেটির উত্তর দেয়ার। ধন্যবাদ সবাইকে। 🙂  সবার জন্যে শুভ কামনা রইল। যেন সবাই তার নিজ নিজ সপ্ন পুরন করতে পারে।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Riad Mahmud

Riad Mahmud

Sign up for our Newsletter

Scroll to Top

start your project today