ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাচ্ছেন! তাহলে এই পোষ্টটা পড়ে ফেলুন যটপট

Share on facebook
Share on google
Share on twitter
Share on linkedin

আপনার যদি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে একটু আধটু ধারনা থাকে, তাহলে এই পোষ্টটি সুধু মাত্র আপনার জন্যে।

আর আপনি যদি একদমই নতুন হয়ে থাকেন তাহলে ফ্রিল্যান্সিং কি? এবং কিভাবে কাজ করে ? এই পোষ্টটি আপনি আগে পড়ে নিন। তার পরে বর্তমান পোষ্টটা পড়ুন। তো আর দেরি না করে চলুন শুরু করা যাক আজকের আলোচনা।

বর্তমানে ফ্রিল্যান্সিং নিয়ে মানুষের জল্পনা-কল্পনার শেষ নেই।

আপনি যদি একজন সফল ফ্রিল্যান্সার হতে চান তাহলে একদম শুরু থেকে আপনাকে কিছু বিষয় মেনে চলতে হবে। আজকে মূলত আমি সেই ধরনের বিষয়গুলো নিয়ে আলোচনা করব যাতে করে আপনি স্মার্টলি খুব সহজে এবং কম সময়ের মধ্যে আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করে দিতে পারেন।

ফ্রিল্যান্সার হিসেবে কাজ করার জন্য আপনাকে অবশ্যই যে কোন একটা বিষয়ের উপরে দক্ষ হতে হবে। যদি আপনি দক্ষতা অর্জন করতে না পারেন, তাহলে কাজের ক্ষেত্রে কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা আপনার জন্য খুবই কম।

এখন চাইলে আপনি একটি বিষয়ের উপরে দক্ষতা অর্জন করতে পারেন শুরুতে। পরে ধীরে ধীরে আপনি বিভিন্ন বিষয়ের উপর দক্ষতা অর্জন করতে পারেন যেমন ধরুন Web Designer, Web Developer, Graphic Designer, SEO Specialist, Content Creator, Accountant, Virtual assistant, Video editor, ইত্যাদি আরো অনেক রকম বিষয় আছে। আরো কি কি ক্যাটাগরি নিয়ে কাজ করা যাবে বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন

ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে আমার কি কি লাগবে?

ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করার জন্য আপনার যে খুব বেশি কিছু জানতে হবে খুব বেশি কিছু লাগবে বিষয়টা আসলে এমন না।আবার অল্প জেনে আপনি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চাচ্ছেন বিষয়টা এমনও নয় তাহলে কি?

ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে আপনার মাত্র ৬ টা বিষয়ের উপরে জোর দিতে হবেঃ

  • আপনাকে অবশ্যই যেকোন একটা বিষয়/কাজের উপরে ভালো দক্ষ হতে হবে।
  • আপনার ইংরেজি জ্ঞান মোটামুটি থাকতে হবে (ক্লায়েন্টের সাথে কমিউনিকেশন করার জন্যে)
  • আপনাকে অনেক ধৈর্যশীল হতে হবে।
  • অনেক অনেক ধৈর্যশীল হতে হবে
  • ধৈর্যশীল হতে হবে

“ধৈর্যশীল হতে হবে” এই কথাটা আমি ৩ বার বলেছি এটার গুরুত্ব বুঝানোর জন্যে। (ফ্রিল্যান্সিং এ ধৈর্যশীল হতে না পারলে আপনি কাজ করতে পারবেন না) সে জন্য আগে থেকে আপনাকে প্রস্তুত হতে হবে।

শুধু কাজ শিখলেই কি আমি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে পারবো?

এই প্রশ্নটার উত্তর প্রায়ই আমাকে দিতে হয়। আজ আমি আপনাদের সাথে উত্তরটা একটু অন্যভাবে শেয়ার করব।

ধরুন আপনি বাইক চালাতে শিখতে চান, এখন আমি আপনাকে একটা বই সাজেস্ট করব এবং আপনাকে বলে দিব যে, এই বইটা আপনি পড়ে শেষ করলে বাইক চালানো শিখে যাবেন।

এখন আপনি বইটা কিনে ফেল্লেন এবং বইটা পড়েও শেষ করলেন। আচ্ছা আপনার কি মনে হয় আপনি যেদিন বইপড়া শেষ করেছেন সেদিন থেকেই খুব ভালোভাবে বাইক চালাতে পারবেন? উত্তরটা হচ্ছে আপনি কখনই পারবেন না।

বই পড়ে, আপনি কিভাবে বাইক চালাতে হয় শুধু মাত্র সেটা শিখেছেন। অর্থাৎ আপনি সুধু জ্ঞান অর্জন করেছেন মাত্র! জ্ঞান অর্জন করা আর সেই বিষয়ে তাৎক্ষণিক দক্ষ হয়ে ওঠা এক জিনিস নয়।

আপনাকে অবশ্যই জ্ঞান অর্জনের পাশাপাশি সেই বিষয়ের উপরে দক্ষ হয়ে উঠতে হবে তা নাহলে মার্কেটপ্লেসে কাজ পাওয়াটা আপনার জন্য অনেক কষ্টসাধ্য হয়ে যাবে এবং খুব সহজেই আপনি হতাশ হয়ে পড়বেন। 

সুতরাং দক্ষতা ছাড়া আপনি মার্কেটপ্লেস গুলাতে কাজ করতে পারবেন না।

কিভাবে আমি নিজের দক্ষতা আরো বাড়াতে পারি? 

নিজেকে কোন এক বিষয়ের উপর দক্ষ করে তোলার জন্য আপনাকে কয়েকটি পন্থা অবলম্বন করতে হবে। তাহলে আপনি খুব সহজেই ধীরে ধীরে নিজের দক্ষতা বাড়াতে পারবেন।

আপনি যে বিষয়ের উপরে কাজ শিখেন না কেন, সে বিষয়ে আপনি যদি গুগল এ সার্চ করেন তাহলে দেখবেন অনেক অনলাইন পোর্টফলিও ওয়েবসাইট আছে সেখানে আপনার কাজ গুলা কে আপনি বিভিন্ন মানুষের কাছে প্রেজেন্ট করতে পারবেন। এবং সেখান থেকে আপনি বিভিন্য এক্সপার্টদের কমেন্ট গুলকে ফলো করতে পারেন। তাদের কমেন্টস এর উপর ভিত্তি করে আপনি আপনার কাজের দক্ষতা আরও বাড়াতে পারবেন।

আমি ধরে নিলাম আপনি একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনার। গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের জন্য বেশ কয়েকটি জনপ্রিয় পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট রয়েছে এবং আপনি চাইলে সেই সাইট গুলোতে নিজের প্রোফাইল তৈরি করে আপনার প্র্যাকটিস করা কাজ গুলো বিভিন্ন এক্সপার্ট গ্রুপে শেয়ার করতে পারেন। (এখানে কোন টাকা পে করতে হবে না আপনাকে) পাশাপাশি তাদের মতামত নিতে পারেন এবং মতামত দিতেও পারেন। এই পদ্ধতিটা আপনার দক্ষতা কে আরো বহুগুণে বাড়িয়ে দিবে।

জনপ্রিয় দুইটি অনলাইন পোর্টফলিও ওয়েবসাইটঃ Dribble, Behance এই দুইটি ওয়েবসাইট মূলত গ্রাফিক্স ডিজাইনার এবং ওয়েব ডেজাইনারদের জন্য অনেক বেশি জনপ্রিয়।

কাজ তো শিখে ফেল্লাম, এখন কাজ করবো কোথায়?

কথায় আছে, হাতের কাজ শিখে কেউ কখনো বেকার থাকে না। ঠিক তেমনি আপনি যদি ফ্রিল্যান্সিংয়ের উদ্দেশ্যে যে কোন একটি বিষয়ের উপরে কাজ শিখে ভালো মত দক্ষ হয়ে ওঠেন, তাহলে আপনার কাজের অভাব হবে না। কারন আপনার দক্ষতা কেউ আপনার থেকে ছিনিয়ে নিতে পারবে না। আর যার দক্ষতা আছে সে যে কোন জায়গা থেকে কাজ শুরু করে দিতে পারবে।

এখন আমি ধরে নিলাম, আপনি একটা বিষয়ের উপরে মোটামুটি দক্ষতা অর্জন করেছেন। যেটা দিয়ে আপনি মার্কেটপ্লেসে কাজ শুরু করতে পারবেন। তো চলুন আপনার জন্য কোন মারকেটপ্লেসটা উপযুক্ত একবার দেখে নেয়া যাক।

বর্তমানে আমাদের দেশে ৪টি অনলাইন ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস আছে। যেখানে আপনি আপনার দক্ষতা অনুযায়ি ফ্রিলান্সিং শুরু করে দিতে পারেন। সেই ৪টি মারকেটপ্লেস হচ্ছেঃ Freelancer.Com, Upwork.Com, Fiverr.Com, PeoplePerHour.Com

আপনি এখন চাইলে উপরের চারটি বড় বড় ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস থেকে যেকোনো একটিকে জয়েন করে আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার শুরু করে দিতে পারেন।

আমি তো একদমই নতুন! কোন মার্কেটপ্লেসটা আমার জন্যে ভালো হবে?

নতুন হিসেবে আমি আপনাকে বলব Fiverr মার্কেটপ্লেসটা সবদিক থেকে বেস্ট। কারণ, এখানে নতুন হিসাবে কাজ পাওয়া খুবই সহজ। পাশাপাশি এই মার্কেটপ্লেসে ইনকামের পরিমাণটাও অনেক বেশি হয়। Fiverr এ আপনি কি কি বিষয় নিয়ে কাজ করতে পারবেন দেখতে চাইলে এখানে ক্লিক করুন

আপনার যদি ফাইবার মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে অনেক কম ধারনা থাকে তাহলে ফাইবার মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানার জন্য আপনি এই ইউটিউব চ্যানেল টা দেখতে পারেন পাসাপাসি ফাইবার মার্কেট নিয়ে ফেসবুকে অনেক বড় একটা অনলাইন গ্রুপ আছে আপনি চাইলে সেখানেও জয়েন করতে পারেন। গ্রুপে জয়েন করতে ক্লিক করুন।

আশাকরি আপনি যদি উপরের YouTube Video + Facebook Group টাতে এক্টিভ থাকেন তাহলে আপনি কাজ শুরু করে দিতে পারবেন ফাইবারে।

এর পরেও ফাইবার সম্পর্কে আপনার যদি আরো বিস্তারিত জানার ইচ্ছা থাকে। তাহলে আমি আপনাকে সাজেস্ট করব ফাইবার মার্কেটপ্লেস নিয়ে একটি কমপ্লিট অনলাইন ভিডিও কোর্স অবশ্যই এটি পেইড কোর্স এবং আপনাকে টাকা দিয়ে কিনতে হবে। চাইলে আপনি এখান থেকে কোর্সের আউটলাইন দেখতে পাবেন। ফাইবার কোর্স সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে এখানে ক্লিক করুন।

ফাইবার মার্কেটপ্লেসে কাজ পাওয়া যেমন সহজ, তেমনি একাউন্ট নষ্ট হওয়া টা অনেক সহজ। আপনি যদি তাদের সামান্য কোন রুলস ব্রেক করেন যেটা তাদের টার্মস এন্ড কন্ডিশন এর মধ্যে পড়ে সে ক্ষেত্রে আপনার অ্যাকাউন্ট টা তারা সাথে সাথেই ব্লক করে দিতে পারে বা হোল্ড করে রাখতে পারে। সুতরাং এখানে কাজের ক্ষেত্রে আপনাকে অনেক সচেতন হতে হবে। এবং কাজ শুরু করার আগে ফাইবারের টার্ম এবং কন্ডিশন গুলা ভালো ভাবে পড়ে নিতে হবে Fiverr Terms & Conditions

এই পোস্টটা আর বড় করব না 😛 সময়ের সাথে সাথে এটা কে আপডেট করব। এর থেকে বেশি বড় করলে অনেকেই আছে যারা সম্পূর্ণটা ধৈর্য ধরে পড়বে না। আবার অনেকেই আছে অনেক ধৈর্য্য নিয়ে পড়বে।

অনলাইনে কাজ করতে হলে আপনার ক্যারিয়ার গড়তে হলে আপনাকে প্রচুর পড়তে হবে এবং অনেক বেশি জ্ঞান অর্জন করতে হবে তা না হলে আপনি এই অনলাইন প্রতিযোগীতায় টিকে থাকতে পারবেন না। আর এই সব কিছুর জন্যে আপনাকে অনেক “ধৈর্যশীল হতে হবে”। 

এই পোষ্ট রিলেটেড আপনাদের যদি কোন প্রশ্ন থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট বক্সে আপনার প্রশ্নটি করে ফেলুন। আমি চেষ্টা করবো আপনাকে সাহায্য করার ধন্যবাদ।

 

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Riad Mahmud

Riad Mahmud

Sign up for our Newsletter

Scroll to Top

start your project today